পড়াশোনার জন্য দিনের সময়কে ভাগ করে নিন

images

একজন ছাত্র হিসেবে সঠিক উপায়ে নিজের time management করাটা খুব জরুরী। আপনি প্রথম থেকেই যদি নিজের পড়ার সময়টা অন্যান্য সময়ের মধ্য থেকে সঠিকভাবে ভাগ করে না নিতে পারেন তাহলে কখনোই পড়াশোনায় নিজেকে মনোযোগী করে তুলতে পারবেন না।

সময় বণ্টন মানে এমন নয় যে আপনি সারাদিনের সময়টা কেবল পড়ার জন্যই বরাদ্দ করে ফেলবেন, বরং ব্যাপারটা এমন যে আপনার অন্যান্য কাজের মাঝে বা সাথে পরিকল্পনা মতো পড়াশোনাটাও সময় অনুযায়ী চালিয়ে যেতে পারবেন। একজন ছাত্র কিভাবে নিজের সময় বণ্টন করতে পারে আসুন জেনে নিই সে বিষয়ে কিছু পরামর্শ।

একটি সময়সূচি তৈরি করুন (make a timetable)

ছাত্র হিসেবে প্রত্যেকের একটি নির্দিষ্ট টাইমটেবিল থাকা উচিৎ। কখন কোথায় যাবেন, কোন কাজটি কোন সময়ে করতে হবে, দিনের কতটুকু সময় কি কাজে খরচ করতে হবে সবকিছুর একটি তালিকা তৈরি করুন। আপনার ঘরের বা পড়ার টেবিলের সামনে তালিকাটি রাখার চেষ্টা করুন। যাতে আপনি আপনার সময়সূচী ভুলে গেলেও রেখে দেওয়া তালিকাটি আপনাকে সব সময় সময় বণ্টন করতে উৎসাহ প্রদান করে।

গোছানো থাকুন (be organized)

আপনার সময় বণ্টনের অন্যতম পূর্বশর্ত হলো সংগঠিত থাকা। যেমন পড়ার জন্য পড়তে বসার আগে জায়গা না খুঁজে পড়ার জন্য নির্দিষ্ট একটি জায়গা নির্ধারিত করে রাখা, পড়তে বসে প্রয়োজনীয় উপকরণ না খুঁজে সব কাজের জিনিস হাতের কাছে রাখা, সময় বাঁচাতে সাহায্য করবে এরূপ সাহায্যকারী পড়ার জিনিসপত্র সাথে রাখা এবং কখন কি পড়বেন সেটা পড়তে বসে ঠিক না করে আগে থেকে তালিকা প্রস্তুত রাখা ইত্যাদি।

কোন বিষয়টি কখন বেশী গুরুত্ব পাবে সেটা ঠিক করা (prioritize your tasks)

কোন সময়ে কোন বিষয়ে আপনি পড়ালেখা শুরু করবেন সেটি যদি আগে থেকে ঠিক করে না রাখেন তো পড়তে বসে এসব ভাবতে ভাবতে আপনার পড়ার সময় পার হয়ে যাবে। আর এমন পরিস্থিতিতে আপনি কখনই সঠিক উপায়ে সময় বণ্টন করতে পারবেন না। তাই আপনাকেই ঠিক করতে হবে গুরুত্ব অনুযায়ী কখন কোন বিষয়ে পড়াশোনা করবেন।

অতিরিক্ত চাপ নেবেন না (avoid overload)

আপনার সময়ের তালিকায় সঠিক উপায়ে বিশ্রাম, ঘুম, খাওয়া দাওয়া, বিনোদন ইত্যাদির জন্য সুষ্ঠুভাবে সময় বণ্টন করুন। যেহেতু সময় বণ্টন করা মানে কেবল পড়ার জন্য সময় নির্ধারণ করা নয় তাই শুধু সব সময় পড়ার অতিরিক্ত চাপ না নিয়ে অন্যান্য কাজের সময়গুলো এতে অন্তর্ভুক্ত করুন। পড়ার ফাঁকে ফাঁকে অল্প করে করে বিশ্রাম নিন, এতে আপনার পড়ার গতি বাড়বে।

আপনার জন্য কার্যকর একটি পদ্ধতি খুঁজে বের করুন (find a study method that works for you)

কারো ক্ষেত্রে নোট রেখে রেখে পড়লে ভালো কাজে দেয় আবার কারো ক্ষেত্রে আগে সম্পূর্ণ পড়া মুখস্থ করার পর নোট করলে তা বেশী কাজে দেয়। তাই কোন পদ্ধতিতে আপনি পড়লে আপনার জন্য সেটি সব থেকে ভালো কাজে দেবে সে উপায়টি আপনাকেই খুঁজে বের করতে হবে। এই তালিকায় আরও যোগ করুন দিন ও রাতের কোন সময়টি আপনার পড়ার জন্য বেশী উপযোগী। এবার সে অনুযায়ী আপনার পড়ার সময়সূচী তৈরি করে ফেলুন।

শিক্ষাজীবন হচ্ছে শৃঙ্খলা ও সময়ের সঠিক ব্যবহার করার সব থেকে উপযোগী সময়। আর একজন ভালো ও বুদ্ধিমান শিক্ষার্থী হিসেবে আপনার উচিত হবে সময়ের পেছনে পেছনে না ছুটে সময়ের সাথে সাথে ছোটা। বিশ্বাস করুন, সফল হবেন।

লিখতে ভালোবাসি, তাই চাই আমি যা জানছি ও শিখছি লেখার মাধ্যমে সবার মাঝে তা ছড়িয়ে দিতে…

(1074)

Related posts:

মন্তব্য

মন্তব্য